জানি দোষ আমারো ছিলো আমার এভাবে ওকে ছেড়ে

জানি দোষ আমারো ছিলো আমার এভাবে ওকে ছেড়ে

জানি দোষ আমারো ছিলো আমার এভাবে ওকে ছেড়ে, সেদিন হুট করে নিউজফিড ঘাটতে ঘাটতে দেখি,

আমার স্বামীর ছবি কোন এক মেয়ের প্রোফাইলে ভেসে উঠছে।সন্দেহ বসত আইডিটায় ঢুকলাম,

ঢুকে দেখি ওই মেয়ের সাথে এটাচ করা অনেক গুলো পিক তার। দেখে তো হাত পা কাঁপতে শুরু করলো।

এই তো এক মাস ও হয় নাই রাগ করে তাকে আমি ছেড়ে এসেছি। বাবা মা চাচ্ছিলো তাকে ছেড়ে

আমি যেন অন্য কারো সাথে সংসার করি আর তাতেই এত কিছু ঘটে গেলো আসা ঠিক হয়নি।

আরও ভালবাসার গল্প পেতে ভিজিট করুউঃ logicalnewz.com

জানি দোষ আমারো ছিলো আমার এভাবে ওকে ছেড়ে

কিন্তু তাই বলে ও আমাকে ভুলে এই এক মাসেই অন্য কাউকে নিজের জীবনের সাথে জড়িয়ে নিবে?

হাত পা অবশ হয়ে আসছিলো আমার। মেয়েটাকে ওদের এটাচ পিকে কমেন্ট করলাম, আমি তাকে মেসেজ

করার অপশন পাচ্ছিনা। সে যেন আমাকে মেসেজ দেয়। মেয়েটা আমাকে মেসেজ দিলো,

রিকুয়েস্ট দিলো। আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম,প্রোফাইল পিকের ছেলেটা কি হয় আপনার? সে প্রথমে

বলতে চাইলোনা। আমিও আর তেমন জোর করলাম না। পরে আপনি আপনিই সে আমাকে বল্লো,

ও আমার হাসবেন্ড। খোদার কসম তখন মনে হচ্ছিলো,কেউ আমার কলিজাটা টেনে টেনে ছিঁড়ছে।

আমি তাকে বললাম লিমি র মধ্যে থেকে কথা বলুন

সে উত্তর দিলো,আমার বরকে আমি বর বলবো এতে লিমিটের মধ্যে থাকতে হবে কেন? আপনি আর

ভুল করেও ওর নাম নেয়ার চেষ্টা করবেন না। আমি ওকে ভালবাসি। ও আমার ভালবাসা। আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম,

ও আপনাকে ভালবাসে? সে উত্তর দিলো,আমি ওর জীবন। ও আমাকে খুব ভালবাসে। যেহেতু মেয়েটা আমাকে

ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট দিয়েছে,তাই আমি তার আইডিতে ফ্রেন্ডস করা সব কিছুই দেখতে পাচ্ছিলাম। হঠাৎ করে,

আমার সামনে আমার বর আর ওই মেয়ের ভিডিও কলের একটা শট চলে এলো। মেয়েটা শট টা পোস্ট করে

জানি দোষ আমারো ছিলো আমার এভাবে ওকে ছেড়ে

ক্যাপশন দিয়েছে, আমার বর টা। আর কত যে পিক ফ্রেন্ডস করা আমার বরের ওর আইডিতে। একজন স্ত্রীর এই শট আর ক্যাপশন দেখার পর,আর তার স্বামীর ছবি কোন এক পরনারীর সাথে দেখার পর কি অবস্থা হতে পারে একটা বার ভেবে দেখুন।

আমার কলিজায় রক্তক্ষরণ হচ্ছিলো ততক্ষণে। আমি চিৎকার করে কাঁদছিলাম তখন,বুক ফাটা আর্তনাদে ছটফট করছিলাম।

দিশা না পেয়ে সরাসরি আমার বরকে শট টা সেন্ড করে মেসেজ দিলাম। কিন্তু তার এমন রিপ্লাইয়ের জন্য আমি মোটেও প্রস্তুত ছিলাম না। তিনি রিপ্লাই দিলেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *