তুই শুধু তাকিয়ে থেকে দেখে যা তারপর কথা বলবি

তুই শুধু তাকিয়ে থেকে দেখে যা তারপর কথা বলবি

তুই শুধু তাকিয়ে থেকে দেখে যা তারপর কথা বলবি, মাহফুজ, জি স্যার সবকিছু ভালোভাবে চলছে,

আশা করছি খুব তাড়াতাড়ি এই কেসটা সলভ করে ফেলবো, কতা বলা শেষ হতেই ফোনটা কেটে গেলো,

তারপর ঘুমিয়ে পরলাম, সকাল বেলা কলেজে গিয়ে রাজের সাথে আড্ডা দিতে লাগলাম, আর তখনই দেখি

৩ থেকে ৪ জন ছেলে প্রিন্সিপালের রুমে ঢুকলো, সবগুলোকেই দেখতে গুন্ডাদের মতো, সবাই মাস্ক পরে আসছে,

যেনো মনে হচ্ছে জঙ্গল থেকে উঠে এসেছে, কলেজে আসার পর থেকে ওদেরকে দেখি নাই,তবে কি

আরও ভালবাসার গল্প পেতে ভিজিট করুউঃ logicalnewz.com

তুই শুধু তাকিয়ে থেকে দেখে যা তারপর কথা বলবি

কুকর্ম করে নাকি মনে প্রচুর পরিমান সন্দেহ হতে লাগলো,কি হচ্ছে দেখা দরকার,এই রাজ আমার একটা

পার্সোনাল ফোন আসছে,আমাকে একটু সাইডে যেতে হবে, রাজকে মিথ্যা বললাম, কারন এখন প্রিন্সিপালের

রুমে যেতে হবে, রাজের কাছে থেকে সরে গিয়ে প্রিন্সিপালের রুমের দরজায় গিয়ে দাড়ালাম,

তারপর লুকিয়ে ওদের কথা শুনতে লাগলাম, প্রিন্সিপাল, এই তোমরা এখন কলেজে আসছো কি জন্য,

তোমাদেরকে না আমি বলেছিলাম যে আমি ফোন করবো যদি কেউ এটা দেখে নেয়,তাহলে তোমরা

সহ আমাকেও জেলের গানি টানতে হবে, ছেলেগুলো, আরে প্রিন্সিপাল রাখতো তোর জেল,

আমরা ওসব জেলের ভয় পাই না,তোকে বলেছিলাম ষে ড্রাগ গুলো দেশের বাইরে পাঠাতে হবে,

সেটা যে করেই হোক,তুই সেগুলো নিয়ে কোথায় রাখছিস বল তাড়াতারি, প্রিন্সিপাল, তোমরা উত্তেজিত হচ্ছো

কেন এতো আমি তো টাকার গোলাম,তোমাদের ড্রাগ গুলো আমি যথা সময়ে পাঠিয়ে দিবো,

কারন আমিও চাই অনেক বড়লোক হতে এই

প্রিন্সিপাল হয়ে কতোদিন থাকবো, আমি একেবারে দেশের বাইরে চলে যাবো, আর জীবনটাকে উপভোগ করবো,

ছেলেগুলো, ঠিক আছে, আমরা এখন চলে যাচ্ছি, ঠিক সময়ে যেনো মালগুলো পেয়ে যায়, নাহলে তোকে এমন অবস্থা করবো,

যে তোকে কবরও ভয় পেয়ে দাফন করতে দিবে না, বলে ছেলেগুলো চলে গেলো, মাহফুজ, এদিকে আমার

সমস্ত কিছুর ভিডিও করা শেষ, ছেলেগুলো আসতেই লুকিয়ে পরলাম, তারপর আবার রাজের কাছে চলে গেলাম,

তুই শুধু তাকিয়ে থেকে দেখে যা তারপর কথা বলবি

কিন্তু আড্ডা দেওয়া আর হলো না, তানহা রাজের সাথে বসে আছে, রাজ, কিরে তোর কথা বলতে এতো সময় লাগ সেই কখন চলে গেলি,

মাহফুজ, আরে এখন তো আসছি, আর ওয়েট করা লাগবে না, তানহা, মাহফুজ তুমি কোথায় গিয়েছিল আমি এসে দেখলাম রাজ বসে আছে,

বাট তুমি নাই, ও জিজ্ঞাসা করলে বললো মোবািলে কথা বলতে গেছে, সো কথা বলতে কি এতো সময় লাগে নাকি মাহফুজ,

দুইজন মিলে আমার পিছনে লাগছে, এখন আমার কান্না পাচ্ছে, রাজ, থাক আর কান্না করতে হবে না, অনেক ক্ষুদা লাগছে তো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *